কবিতা: চিঠি – ১৯৯২

0
36

চিঠি – ১৯৯২

সৌখিন চাকমা


সেদিন আকাশে মেঘ ছিলোনা
ছিল কাঠফাটা রোদ।
মধ্যাহ্ণে ঘুঘু ডাকে
অবিশ্রান্ত অলস দুপুরে,
বিরান পথে হেঁটে যাওয়া…
চিঠি যে পৌঁছাতেই হবে!
কিছু পথ পেরোতেই
হঠাৎ পৃথিবী গর্জে ওঠে
বিকট এক শব্দে,
সম্ভবত মর্টার শেল!!
এলোপাথাড়ি গুলির
বুনো চিৎকার তারপর
বাতাসে ধোঁয়া উড়ে।
সংগোপনে নিঃশ্বাস ফেলি
এই বুঝি, দেখে পেলবে!
আর দেখতে পেলে গুলি ছুড়বে!
প্রশ্ন জাগে আত্নজে,
দাদাকে-বৌদির লেখা চিঠি কি দেয়া হবেনা?
ভয়ে রক্ত শীতল হয়, তখন
বয়স যে মাত্র বার!!
খানিক বাদে চারদিক চুপচাপ, নিশব্দ
বাতাসে বারুদের গন্ধ, লাশের গন্ধ
আকাশে থমথমে নীরবতা, মেঘ জমে
মায়ের আঁচলে লুটিয়ে পড়া ছেলের জন্যে।
চিঠি পৌঁছানো গেলনা!
চিঠি আর পড়া হলোনা!
চিঠি-
মিছে গেলো মায়ের কোলে-
একটা মায়ের বুকের আলিঙ্গনে।
আরেকটি মায়ের ঝরে পড়া
সোডিয়াম ক্লোরাইড যুক্ত অশ্রু,
ছেলের গড়িয়ে পড়া রক্তে সাথে মিশে
বয়ে যায় – কাচালং, মাইনি, চেঙ্গি’র জলধারাতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here